10003

ওয়েব সিরিজে হচ্ছে কি?

২৪বিবিডি.কম।।
সাধারণ মানুষ চলচ্চিত্র দেখা বন্ধ করার একমাত্র কারণ, অশ্লীলতা। এখন অনেক ভালো ছবি নির্মাণ হচ্ছে, তবুও অনেকেই পরিবার নিয়ে সিনেমা হলে গিয়ে ছবি দেখতে ভয় পাচ্ছে, কোন দৃশ্যের পর আবার চলে আসে অশ্লীলতা। এদিকে মানুষ টিভি নাটক দেখাও বন্ধ করে দিয়েছেন। অনেকদিন ধরেই লেখালেখি হচ্ছে, টিভির দর্শক চলে গেছে ইউটিউবে। সবাই এখন ইউটিউবে নাটক দেখছেন। এই সুযোগে অনেক নির্মাতা ও প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান নাটক নির্মাণ করা শুরু করেছেন শুধুমাত্র ইউটিউবের জন্য। যাকে বলা হয় ওয়েব সিরিজ। কিন্তু এসব ওয়েব সিরিজে কি দেখানো হচ্ছে? ভিউ বাড়ানো জন্য সাধারন মানুষকে দেওয়া হচ্ছে সুড়সুড়ি। এমনই একটি ওয়েব সিরিজের নাম ‘আবাসিক হোটেল’। সম্প্রতি এর প্রোমো প্রকাশ করা হয়েছে। এতে একটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাহা তানহা খান। তার সঙ্গে আছেন স্পর্শীয়া ও তৌসিফ মাহবুব। কি হয়েছে এতে, শুনুন রাহার মুখেই। ‘আমি বুঝিনি এমন কিছু হবে। আমাদের শুটিংয়ের আগে কোনো স্ক্রিপ্ট দেয়া হয়নি। এর আগে একই পরিচালকের আরেকটি কাজ করেছিলাম আমরা নেপালে। সেখানে আমি স্পর্শীয়া, শামিম, তৌসিফ ভালো বন্ধু হয়ে গিয়েছিলাম। এবারও যখন গাজীপুরের একটি রিসোর্টে শুটিং করি, ভাবলাম বন্ধুদের সঙ্গে মজা করতে করতেই শুটিং হয়ে যাবে। কিন্তু শুটিংয়ের পর ওখানেই মনে হয়েছে, আমরা হয়তো খুব একটা ভালো কাজ করছি না। ডায়লগগুলো শুটিং করার সময় তো বন্ধুদের সঙ্গে মজা করে দিয়ে দিয়েছি। কিন্তু পরে মনে হয়েছে ব্যাপারটি ঠিক হয়নি। কারণ আমার একটা কেরিয়ার আছে, ওদেরও। তখন আর কিছু করার ছিল না। প্রমো দেখে মনে হয়েছে আসলেই ভুল করে ফেলেছি। ডাবল মিনিংয়ের ডায়লগগুলো খুবই বাজে লাগছে। প্রমোতে আরেকটা দৃশ্যে আমার পা ধরে আছে একজন, তখন যে ডায়লগটা শোনা যায়, সেটাও এই দৃশ্যের ডায়লগ না। ডিরেক্টরকে আমি এই দৃশ্যটা না রাখতে বলেছিলাম, কিন্তু প্রমোতেই রেখে দিয়েছে। স্ক্রিপ্ট না দেখে, কিছু না জেনে শুধু বন্ধুদের সঙ্গে মজা হবে ভেবে আর এ রকম কাজ করব না বলে ঠিক করেছি আমি’।

দৃশ্য আবাসিক হোটেল

 

যে প্রমোটি নিয়ে রাহা কথাগুলো বললেন সেটির নির্মাতা ইমরাউল রাফাত। কী বুঝে তিনি এইসব অশ্লীল আর ডাবল মিনিং ডায়লগ দিয়েছেন অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মুখে, আর তারাই বা কী ভেবে এই নিম্ন শ্রেণির ডায়লগগুলো দিয়ে গেছেন- বোঝা গেল না। ৫৮ সেকেন্ডের প্রমোটি আপলোড করা হয়েছে নতুন ইউটিউব চ্যানেল ধ্রুব টিভিতে। প্রমোর শুরুতে লেখা ‘সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ : হেডফোন কানে দিয়ে ভিডিওটি দেখুন’।
এই প্রসঙ্গে অভিনয় শিল্পী সংঘের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম বললেন- ‘ভিডিওটি এখনো দেখা হয়নি। তবে শিল্পীদের বিভিন্ন সমস্যা -সংকট সমাধানে অভিনয় শিল্পী সংঘ কাজ করে যাচ্ছে। প্রথম থেকে আমরা শিল্পীদের সমস্যাগুলোকে সমাধানের জন্যই কাজ করে আসছি। আমাদের উত্থাপিত সমস্যাগুলো সমাধানের বিষয়গুলো এই মাস থেকেই কার্যকর হবে। অভিনয়শিল্পীদের প্রতি সাধারণ মানুষের একধরনের আগ্রহ থাকে, তেমনি প্রতিটি শিল্পীরও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা রয়েছে। কিন্তু তা বিসর্জন দিয়ে যদি কোনো শিল্পী শিল্পকে কুৎসিত জায়গায় নিয়ে যেতে চায়, তাহলে অবশ্যই আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’
আর এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট-এর অ্যাডভোকেট রেজাউল করিম শিল্পী বললেন- ‘এ ধরনের কাজগুলো আইসিটি অ্যাক্ট-এর ৫৭ ধারা এবং অশ্লীলতা ও পর্ণোগ্রাফি আইনের আওতায় পড়ে। অশ্লীলতাবিরোধী টাস্কফোর্স-এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারে।’
শুধু এক ‘আবাসিক হোটল’ই নয়। সাধারণ মানুষকে সুড়সুড়ি দেওয়ার ওয়েব সিরিজের অভাব নেই। তালিকায় আছে- পালাবি কোথায়, অ্যাডমিশন টেস্টসহ অনেক।
এর মানে হচ্ছে, মানুষ ইউটিউবেও বাংলা নাটক দেখা বন্ধ করে দিবে।
সূত্র : নিউজজি-২৪।।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *